গ্লুকোমা

এই পোস্টে পড়ুন: English العربية 'তে

গ্লুকোমা কি ?

ভালো দৃষ্টিশক্তির জন্য অপটিক নার্ভগুলি (চক্ষু বিষয়ক স্নায়ুগুলি) সঠিক অবস্থানে থাকা একান্তই বাঞ্ছনীয় এবং গ্লুকোমা (দৃষ্টিশক্তি লোপ হওয়া চোখের অসুখ /চোখের ছানির জটিল অবস্থা) একটি গুরুতর অবস্থা যা সরাসরি প্রভাবিত করে এবং একই রূপে ক্ষতিও করে। এই জাতীয় ক্ষতির সবচেয়ে সাধারণ কারণ হলো চোখের ওপর অতিরিক্ত চাপ নেওয়া। বেশ কয়েকটি আধুনিক গবেষণার মতে গ্লুকোমা বর্তমানে অন্যতম প্রধান কারণ যার ফলস্বরুপ অন্ধত্ব, বিশেষত প্রাপ্ত বয়স্কদের মধ্যে, ৬০ বছর ঊর্ধ্ব বয়স্কদের মধ্যে বিশেষরূপে দেখা যায়।

গ্লুকোমার সবচেয়ে বড় সমস্যাটি হল এটি প্রায়শই অতি নিঃশব্দে বিকাশ লাভ করে এবং আপনি আগে থেকে যথাযথ সর্তকতা নিতে পারবেন না। তাহলে এই রোগটি ধীরে ধীরে প্রভাব বিস্তার করে এর মানে হল, আপনি কেবল তখনই এই সমস্যাটি সম্পর্কে অবহিত হতে পারবেন যখন এটি ইতিমধ্যে একটি উন্নত পর্যায়ে বিকশিত হয়ে গেছে। যেহেতু গ্লুকোমা দৃষ্টিশক্তির অপূরণীয় ক্ষতি করে দিতে পারে, তাই আপনি যতটা সম্ভব আগে থেকে এবিষয়ে যত্নশীল হলে ভালো হয়।

সবথেকে ভাল উপায় হল নিয়মিত চেকআপ বা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করান। অপথ্যালমোলজিস্ট (চক্ষু বিশেষজ্ঞ/ডাক্তার) এর কাছে প্রত্যেকটি ভিজিট বা দেখানো চোখে পড়া চাপের মাপজোখ গুলিকে সম্পূর্ণ রূপে অন্তর্ভুক্ত করে। এর ফলে, যদি কোন সমস্যা থাকে বলে মনে হয় তাহলে প্রাথমিক পর্যায় থেকেই রোগ নির্ণয় করা সহজতর হয়ে যায়। এই পুরো গল্পের ভনিতা করার মূল কারণ হল, যদি প্রাথমিক পর্যায়ে গ্লুকোমা শনাক্ত করা যায় তবে দৃষ্টিশক্তি কমে যাওয়ার মতো গুরুতর প্রভাব গুলি প্রতিরোধ করা বা কমপক্ষে বিলম্বিত করা যায়। কোন ব্যাক্তি সঠিক পদ্ধতির চিকিৎসা এবং সার্জারির মাধ্যমে এই সমস্যা থেকে সম্পূর্ণ মুক্তি পেতে পারেন।

গ্লুকোমার ধরনগুলি কি কি?

  • ওপেন অ্যাঙ্গেল (খোলা দৃষ্টিকোণ) গ্লুকোমা
  • অ্যাঙ্গেল ক্লোজার (দৃষ্টিকোণ বন্ধ হওয়া) গ্লুকোমা
  • নর্মাল টেনশন (সাধারণ পীড়াদায়ক) গ্লুকোমা
  • কনজেনিটাল (জন্মগত) গ্লুকোমা
  • পিগমেন্টারি (রঙ্গক ছড়িয়ে পড়া) গ্লুকোমা

গ্লুকোমার লক্ষণগুলির গভীরভাবে অনুসন্ধান

গ্লুকোমার অনেকগুলি পর্যায়ে রয়েছে প্রায়শই সেগুলি এই রোগের বিকল্প নাম হিসেবে ব্যবহার করা হয়ে থাকে। লক্ষণ গুলির মধ্যে যাওয়ার আগে, আপনার অবশ্যই এই ধারণাটি সম্পর্কে অবগত হওয়া উচিত যে এগুলি আপনার ক্ষেত্রে শনাক্ত হওয়া গ্লুকোমা কোন পর্যায়ের এবং ধরণের ভিত্তিতে পৃথক পৃথক হয়। লক্ষণ গুলির তীব্রতা একই রকমভাবে অবস্থার উপর নির্ভর করে ও পরিবর্তিত হয়। এই বিভাগে আমরা শিখব গ্লুকোমার লক্ষণগুলিকে তারা কোন পর্যায়ে রয়েছে এবং কোন ধরনের তার ওপর নির্ভর করে। আসুন, শুরু করা যাক –

ওপেন অ্যাঙ্গেল (খোলা দৃষ্টিকোণ) গ্লুকোমা

  • কিছু সময়ের অন্তরালে কেন্দ্রীয় অথবা প্রান্তীয় দৃষ্টির ক্ষেত্রে, দৃষ্টি আচ্ছন্নকারী এবং জোড়াতালি দেওয়ার মত দাগগুলি উভয় চোখে উপস্থিত হতে পারে।
  • টানেল (সুড়ঙ্গপথ এর মত সোজা) ভিশন বা দৃষ্টি (অন্তিম পর্যায় এর সময় ঘটে)

 

ন্যারো অ্যাঙ্গেল (সংকীর্ণ দৃষ্টিকোণ) অথবা একিউট ক্লোজড (প্রায় বন্ধ) গ্লুকোমা

এই ধরনটি প্রায়শই খুবই যন্ত্রণাদায়ক এবং কিছু কিছু ক্ষেত্রে গ্লুকোমার সবথেকে খারাপ পর্যায় হিসাবে পরিগণিত করা হয়। যদি কেউ নিম্নে উল্লেখিত বিষয়গুলিকে অনুভব করছেন, তবে আপনার সেই ব্যক্তিকে অবিলম্বে একজন চক্ষু বিশেষজ্ঞের কাছে নিয়ে যাওয়া উচিত জরুরী চিকিৎসা করার জন্য। আপনি যদি এক দিনের জন্যও শর্তগুলি উপেক্ষা করে বিলম্ব করেন তবে এটি মারাত্মক পরিস্থিতি এমনকি এর জন্য স্থায়ীভাবে চোখের দৃষ্টি চলে যেতে পারে।

নিম্নলিখিত লক্ষণগুলি হয় –

  • চোখ গুলিতে যন্ত্রনার সঙ্গে কাঁপতে থাকা
  • বমি বমি ভাব এবং গা গোলানোভাব
  • চোখের লাল ভাব
  • চোখের তারা বা পুতলির বিস্তৃত হওয়া
  • মাথা ব্যাথা (এটি মাথার একদিকে হতে পারে যদি একদিকের চোখটি আক্রান্ত হয়)
  • আলোর রিং অথবা বলায়কার দৃষ্টি
  • কুয়াশার মতো আচ্ছন্ন অথবা ঝাপসা দৃষ্টি

 

কনজেনিটাল বা জন্মগত গ্লুকোমা : ‘জন্মগত’শব্দটি উল্লেখ করার মধ্য দিয়ে এ বিষয়টি পরিস্কার হয়ে গিয়েছে যে নিম্নে উল্লেখিত গ্লুকোমার লক্ষণ গুলি শিশু এবং শিশুদের প্রাথমিক বছরগুলির সাথে জড়িত।

  • ছেঁড়া, চোখের পাতায় ঝাঁকুনি এবং আলোর সংবেদনশীলতা
  • চোখ গুলিকে রগড়ানো বা ঘষার অভ্যাস, দিনের বেশিরভাগ সময় চোখ গুলিকে বন্ধ করে রাখা এবং চোখগুলিকে গোল গোল করে চারিদিকে ঘোরানো
  • সাধারণ কর্নিয়ার চেয়ে বড় এবং ওই কর্নিয়ার অংশে দৃশ্যমান ঝাপসা স্তর।

 

সেকেন্ডারি বা মাঝারি এবং অন্যান্য ধরনের গ্লুকোমা : সেকেন্ডারি বা মাঝারি ধরনের গ্লুকোমার লক্ষণ গুলি চোখে কতটা চাপ পড়ছে সেই কারণের ওপর নির্ভর করে।এটা যে কোনো রকমের হতে পারে যা অতি খারাপ দৃষ্টি যেমন বলয়াকার এবং আলোর রিং এর মত দৃষ্টি শক্তির দিকে নিয়ে যায়। নিম্নলিখিত বিষয়গুলি মাঝারি গ্লুকোমার কিছু সাধারণ লক্ষণ –

  • ইনফ্লামেশন বা প্রদাহ/জ্বলনশীলতা (ইউভাইটিস নামেও পরিচিত)
  • ফটোফোবিয়া বা আলোকাতঙ্ক অথবা আলোয় সংবেদনশীলতা
  • চোখের চোট-আঘাত গুলি যেমন কর্নিয়াল এডিমা (ফোলা ভাব), রেটিনাল ডিটাচমেন্ট (রেটিনার বিচ্ছিন্নতা) এবং রক্তক্ষরণ

গ্লুকোমার কারণগুলি

যেমনটি পূর্বেই উল্লেখ করা হয়েছে, গ্লুকোমা হল একটি বড় অভিঘাত, চোখের উপর মাত্রারিক্ত চাপের জন্য অবশেষে অপটিক্যাল নার্ভের (চক্ষু বিষয়ক স্নায়ু গুলির) ক্ষতি করে।এর ফলে দৃষ্টি আচ্ছন্নকারী স্পট বা জায়গার বৃদ্ধি পায় এবং যা আপনার দৃষ্টি ক্ষেত্রের মধ্যে চলে আসে। চোখের চাপ সর্বাধিক বৃদ্ধির সবথেকে সাধারণ কারণটি হলো চোখের মধ্যে অত্যাধিক তরল পদার্থের গঠন হওয়ার জন্য, যা অ্যাকিউওস (জলজ) হিউমওর নামেও পরিচিত। এই তরল অশ্রুর আকারে প্রবাহিত হয় না তবে চোখের অভ্যন্তরে ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়ে।

 

এটা স্বাভাবিক যদি সীমাবদ্ধ ভাবে তরল পদার্থ গঠিত হয় তাহলে সেটি অবশেষে ট্রাবেকুলার টিস্যু দিয়ে বয়ে চলে যায় কর্নিয়া (চোখের তারার স্বচ্ছ আবরণ) এবং আইরিশ (চোখের মধ্যে আলো প্রবেশ করার রঙিন অংশটি) এর প্রতিচ্ছেদ বিন্দুতে। যাইহোক,যখন অতিরিক্ত তরল পদার্থ গঠিত হয়ে যায় তা সঠিকভাবে নিষ্কাশিত হতে পারে না, তখন এটি একটি সমস্যা হয়ে দাঁড়ায় এবং আপনার চোখে উপর চাপ বাড়তে শুরু করে। কিছু ক্ষেত্রে গ্লুকোমা হওয়ার কারণ গুলির মধ্যে এই রোগের পারিবারিক ইতিহাস ও অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে।

সাধারণ ঝুঁকির কারণগুলি

গ্লুকোমার প্রধান উপসর্গগুলি এবং লক্ষণগুলি সম্পর্কে আপনার কাছে অবশ্যই প্রাথমিক জ্ঞান থাকা উচিত, তবে এটা জানাও গুরুত্বপূর্ণ যে রোগের গুরুতর দীর্ঘস্থায়ী অবস্থা কোনরকম লক্ষণ ছাড়াই বিকাশ লাভ করতে পারে। সুতরাং, ঝুঁকিপূর্ণ কারণ গুলির সম্পর্কে আপনার সচেতন হওয়াও গুরুত্বপূর্ণ। কারণগুলি হল :

  • চোখের মধ্যে উচ্চ ইন্ট্রাওকুলার বা আভ্যন্তরীণ প্রেসার বা চাপ
  • দীর্ঘদিন ধরে চোখের ড্রপ ব্যবহার করতে হতে পারে।
  • ৬০ ঊর্ধ্ব বয়স হলে ক্ষতির সম্ভাবনা
  • চোখের সার্জারি (অস্ত্রোপচার) অথবা চোট-আঘাতের পূর্ব ইতিহাস থাকলে
  • হিস্পানিক, কালো হওয়া বা এশিয়ান হওয়া
  • গ্লুকোমার জিনগত ইতিহাস
  • খুবই দূরের দৃষ্টি শক্তিতে অথবা কাছের দৃষ্টি শক্তিতে ভালো হওয়া
  • অন্তর্নিহিত কারণ গুলি যেমন ডায়াবেটিস, অ্যানিমিয়া বা রক্তাল্পতা, উচ্চ রক্তচাপ (ব্লাড প্রেসার) এবং কার্ডিয়াক সমস্যাগুলি
  • কর্নিয়া কোথায় ঘটেছে

গ্লুকোমা রোগ নির্ণয়

গ্লুকোমা রোগ নির্ধারণের অর্থ হল আপনার চক্ষু বিশেষজ্ঞ / চিকিৎসক আপনার রোগের সম্পূর্ণ ইতিহাস পরীক্ষা নিরীক্ষা করে বিশ্লেষণ করবেন। গ্লুকোমা রোগ নির্ণয়ের বিভিন্ন পরীক্ষা গুলির মধ্যে রয়েছে :

  • টোনোমেট্রি
  • গনিস্কোপি
  • অপটিক নার্ভ এবং রঞ্জিত এর ক্ষয়ক্ষতির পরীক্ষা
  • প্যাচিমেট্রি
  • ভিজুয়াল (দৃষ্টি সংক্রান্ত) ফিল্ড এক্সামিনেশন

গ্লুকোমার জন্য চিকিৎসা

নিম্নলিখিত উপায়ে বা পদ্ধতিতে গ্লুকোমার চিকিৎসা করা যেতে পারে :

চোখের ড্রপ / আই ড্রপ

  • প্রোস্টাগ্ল্যান্ডিনস
  • বিটা ব্লকার
  • আলফা অ্যাড্রেনার্জিক অ্যাগোনিস্টস
  • কার্বনিক অ্যানহাইড্রেস ইনহিবিটর্স
  • রোহ্ কিনসে্ ইনহিবিটর্স
  • কোলিনার্জিক অথবা মায়োটিক এজেন্টস

খাওয়ার ওষুধগুলি

আপনার চিকিৎসক কার্বনিক অ্যানহাইড্রেস ইনহিবিটর, যা একটি খাওয়ার ওষুধ সেটি লিখে দিতে পারেন, যদি আপনার চোখের প্রেসার বা চাপ, চোখের ড্রপ এর দ্বারা নিচে না নামে তখন এটি প্রয়োজনীয়তা অনুসারে দেওয়া হয়।

সার্জারি বা অস্ত্রোপচার

লেজার সার্জারি পদ্ধতি ওপেন অ্যাঙ্গেল গ্লুকোমা বা উন্মুক্ত দৃষ্টিকোণ যুক্ত গ্লুকোমার ক্ষেত্রে কিঞ্চিত মাত্র তরলের বা ফ্লুইডের প্রবাহকে চোখ থেকে বাড়িয়ে দেয় অথবা এঙ্গেল ক্লোজার গ্লুকোমা বা দৃষ্টিকোণ সংকীর্ণ হওয়া গ্লুকোমায় তরলের বাধাপ্রাপ্ত হওয়া বন্ধ করতে পারে। লেজার সার্জারিতে অন্তর্ভুক্ত :

  • ট্রাবেকুলোপ্লাস্টি ড্রেনেজ এরিয়া বা নিকাশি অঞ্চলটিকে খোলার সাথে অন্তর্ভুক্ত। চোখের আইরিস অংশটিতে একটি ছোট গর্ত তৈরি করা হয় যা তরলটিকে আরো বাধাহীনভাবে প্রবাহিত করার অনুমতি দেয়।
  • সাইক্লোফোটোকোগুলেশন তরল উৎপাদন করতে চোখের মাঝের স্তরের চিকিৎসা পদ্ধতির সাথে জড়িত।

 

মাইক্রো সার্জারি বা ট্র্যাবেকিউলেটমি – এই পদ্ধতিতে, চিকিৎসকেরা তরল বা ফ্লুইড নিষ্কাশনের জন্য একটি নতুন চ্যানেল বা গতিপথ তৈরি করে যা চোখের প্রেসার বা চাপ পড়াকে সহজ করে দেয়।

থেরাপিগুলি

  • লেজার থেরাপি
  • এমআইজিএস / MIGS (মিনিমাল ইনভাসিভ গ্লুকোমা সার্জারি / ন্যূনতম আক্রমণাত্মক গ্লুকোমা সার্জারি)
  • ড্রেনেজ টিউব (নিকাশি নল)
  • ফিল্টারিং সার্জারি

সুতরাং, গ্লুকোমা হল একটি গুরুতর অবস্থা যা সচেতনতা এবং খুব দ্রুত মনোযোগ এর প্রয়োজন রাখে। আপনার অবশ্যই এই রোগের ঝুঁকি গুলি এবং উপসর্গগুলি মাথার মধ্যে রয়েছে এবং সেই রূপে, দায়বদ্ধতার সাথে মনোযোগ দিয়ে এই রোগের সঠিক চিকিৎসার সন্ধান করতে হবে।

যোগাযোগ করুন

জিনজার স্বাস্থ্যসেবা ভারতে চিকিত্সার জন্য নিখরচায় গাইডেন্স এবং সহায়তা সরবরাহ করে। ভারতে ভাল চিকিত্সার অভিজ্ঞতা পেতে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন

contact us-small

Blog Posts...

Never ignore these signs of Breast Cancer
নভেম্বর 3, 2020

স্তন ক্যান্সারের এই লক্ষণগুলিকে কখনই উপেক্ষা করবেন না

আমাদের দৈনন্দিন জীবনে আমরা আমাদের দেহে অনেক পরিবর্তন লক্ষ্য করি। এর মধ্যে কিছু পরিবর্তন যা সাধারণ বলে মনে হয়...
Common Breast Cancer myths
নভেম্বর 2, 2020

স্তন ক্যান্সারের সাধারণ পৌরাণিক কাহিনী

আজকাল, স্তন ক্যান্সার সম্পর্কে প্রচুর তথ্য পাওয়া যায়। তবে এগুলি সব পরিষ্কার বা নির্ভুল নয়। এমন অনেকগুলি পৌরাণিক কাহিনী...
best healthcare startup
মার্চ 26, 2020

জিঞ্জার স্বাস্থ্যসেবা- সেরা স্বাস্থ্যসেবা স্টার্টআপ

জিঙ্গার হেলথ কেয়ার সম্মানজনক সিলিকন ইন্ডিয়া ম্যাগাজিন দ্বারা দিল্লি এনসিআর-এর শীর্ষ 10 হেলথ কেয়ার স্টার্টআপসের মধ্যে স্থান পেয়ে খুশি।...
Arabic Interpreter
মার্চ 26, 2020

জিনজার হেলথ কেয়ার ভারতে বিনামূল্যে আরবিক দোভাষী পরিষেবা সরবরাহ করবে

জিঙ্গার স্বাস্থ্যসেবা রোগীদের কোনও অতিরিক্ত ব্যয় ছাড়াই বিশেষজ্ঞ, প্রশিক্ষিত এবং যাচাই করা দোভাষী প্রদানের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক রোগীদের যোগাযোগের বাধা...